publish on: Thursday 30 November 2017

কৃষকেরা তো ঠকছেনই, ঠকছেন ভোক্তারাও

ফাইল ছবিঃ
শীতের সবজির ভালো আবাদ হয়েছে এবার। বিভিন্ন এলাকার পাইকারি হাটবাজারে প্রতিদিনই প্রচুর পরিমাণ সবজি বিক্রির জন্য নিয়ে আসছেন কৃষকেরা। সরবরাহ বেশি থাকায় কৃষকদের কম দামে সবজি বিক্রি করতে বাধ্য করছেন ব্যবসায়ীরা। এতে অনেক কৃষক লোকসানও গুনছেন। তবে সুফল পাচ্ছেন না সাধারণ ভোক্তারা। দুই থেকে চার গুণ বেশি দামে শীতের সবজি কিনতে হচ্ছে তাঁদের। শেষ পর্যন্ত লাভবান হচ্ছেন মধ্যস্বত্বভোগী ব্যবসায়ীরাই। রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন শহর, এমনকি গ্রামেও একই চিত্র। শীতের সবজির বড় পাইকারি বাজার বগুড়ার মহাস্থান হাটে গত সোমবার কৃষকেরা প্রতি কেজি ফুলকপি ৮ টাকা দরে বিক্রি করেন। কেজিতে সাধারণত দুটি ছোট আকারের ফুলকপি হয়। ঢাকার কারওয়ান বাজারে এই ফুলকপি প্রতিটি ১৫-২৫ টাকায় খুচরা বিক্রি হয়েছে। এ ছাড়া সোমবার বগুড়ায় যে বাঁধাকপির দর ১০ টাকা, কারওয়ান বাজারে মানভেদে তা ২০-৩০ টাকায় বিক্রি করেছেন খুচরা বিক্রেতারা। একইভাবে প্রতি কেজি ১৫ টাকার বরবটি ৫০-৬০ টাকা, ১৭-১৮ টাকার বেগুন ৪০ টাকা, ১০ টাকার পেঁপে ২০ টাকায়, ৫ টাকার মুলা ১৫-২০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। আরেক বড় পাইকারি বাজার ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের পাশে নরসিংদীর রায়পুরার জংলি শিবপুরের বাজারেরও একই হাল। এখানে গত রোববার প্রতি কেজি বরবটি ২৫-৩০ টাকা, বেগুন ৩৫-৪০ টাকা, গোল বেগুন ৩০ টাকা, জলপাই ১৫-১৭ টাকা, শিম ৫০ টাকা ও ধনেপাতা ৩৫-৪০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করেন কৃষকেরা। এর প্রায় ২৫ কিলোমিটার দূরত্বে নরসিংদীর বটতলা বাজারে সেই দিনই প্রতি কেজি বরবটি ৬০ টাকায়, বেগুন ৮০, গোল বেগুন ৬০, জলপাই ৩০, শিম ৬০ এবং ধনেপাতা ১০০